-->

কিভাবে ফেসবুক আইডি ফিরে পাব ২০২২

আজকের আর্টিকেলে যে বিষয়ে কথা বলতে যাচ্ছি তা আপনি শিরোনাম দেখেই বুঝতে পেরেছেন তারপরও বলি আজকে আমরা আলোচনা করবো কিভাবে ফেসবুক আইডি ফিরে পাব এ বিষয়ে ফেশবুকের সাথে একটু পরিচিত হওয়া যাক আসুন শুরুতে ফেশবুকের ইতিহাস জানি। এটা জানা জরুরী কারন এ বিষয় গুলো সম্পর্কে সাধারন জ্ঞান রাখতে হয়। এগুলো এখন বিভিন্ন চাকুরীর মৌখিক পরীক্ষায় প্রশ্ন করা হয় যাক সেদিকে না জাই সেটি ভিন্ন আলোজনা আচকের আলোচনায় ফেরা যাক।

ফেসবুক কী?

এমন প্রশ্ন আগে দেখা গেলেও এখন দেখা যায় না। তারপরও বলি ফেসবুক বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক মিডিয়া শুধ কি এটি তো বাংলাদেশেও সর্বাধিক জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। খুব কম মানুষ পাওয়া যাবে যাদের ফেশবুক একাউন্ট নাই। তাই আমি মনে করি ফেশবুক সম্পর্কে বলার কিছু নাই।

যে কেউ ফেসবুকে ফ্রি অ্যাকাউন্ট বা আইডি খুলতে পারবেন। আপনার বন্ধু, পরিবার এবং আত্মীয়দের সাথে ফেসবুক আইডির মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারেন। চ্যাট, স্ট্যাটাস, ভয়েস কল, ভিডিও কলের ইত্যাদি জন্য ফেসবুকের জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে। বর্তমানে ফেসবুকের মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা বন্ধুদের যোগাযোগ করতে, বার্তা প্রেরণ করতে এবং তাদের ব্যক্তিগত তথ্য আপডেট এবং আদান প্রদান করতে তাদের শহর, কর্মক্ষেত্র, স্কুল এবং অঞ্চল ভিত্তিক নেটওয়ার্ক বা গ্রুপ তৈরী করে সবাই মিলে এক সাথে যুক্ত হচ্ছে।

ফেসবুক কোন দেশের সংস্থা

ফেসবুক তৈরির ইতিহাস

ফেসবুক একটি আমেরিকান সংস্থা। যদিও এটি প্রাথমিকভাবে কোনও সংস্থা হিসাবে চালু করা হয়নি। পরে ধিরে ধিরে সামনের দিকে এগিয়ে গেছে নিচে এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

ফেসবুক আবিষ্কার হয় কত সালে ?

ফেসবুকের আবিষ্কার হয় ২০০৪ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের মার্ক জুকারবার্গ নামের একজন ব্যক্তি আবিষ্কার করেন। ২০০৪ সালে, তিনি ফেসমাস দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিল। আর ফেসবুক প্রতিষ্ঠার কথা ভাবুন। ওই বছরের ৪ ফেব্রুয়ারি তিনি এবং তার বন্ধুরা এই ঐতিহাসিক কাজটি করে ফেলেন।

ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা কে ? / ফেসবুকের জনক কে ?

মার্ক জুকারবার্গ ৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৪ সালে ফেসবুক প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। যদিও তিনি ফেসবুক প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, তবে এর বর্তমান মালিক ফেসবুক ইনক। মার্ক জাকারবার্গ তার রুমমেট কম্পিউটার বিজ্ঞানের শিক্ষার্থী এদুয়ার্দো সেভেরিন, ডাস্টিন মোসকোভিটিজ এবং ক্রিস হিউজের যৌথ প্রয়াসে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় ফেসবুক তৈরি করেছিলেন। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর দ্বিতীয় বর্ষের পড়ার সময়, জুকারবার্গ ২৮/০৮/২০০৩ এ ফেসম্যাস নামে একটি সাইট তৈরি করেছিলেন। এটি মুলত ফেসবুকের পূর্বসূরী সাইট।

তিনি ২০০৪ সালের জানুয়ারিতে ফেসবুক ডটকমের জন্য কোড লেখা শুরু করেছিলেন। শিগগিরই মার্ক জুকারবার্গের সাথে ডাস্টিন মোসকোভিটস (প্রোগ্রামার), ক্রিস হিউজেস এবং এডুয়ার্ডো সাভারিন (এছাড়াও ব্যবসায়িক মুখপাত্র) এবং অ্যান্ড্রু ম্যাককালাম (গ্রাফিক শিল্পী) যোগ দিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন

পছন্দের বাংলা অডিও গান ডাউনলোড

দিয়ে মেয়েদের ইসলামিক নাম ২৫৪ টি

ফেসবুক থেকে ভিডিও ডাউনলোড

ফেসবুক নাম করণ

প্রতিষ্ঠার সময় ফেসবুকের ওয়েব লিঙ্কটি ছিল thefacebook . com। এটি ধীরে ধীরে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করে। ২০০৪ এর ডিসেম্বরে, ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১ মিলিয়নে (১০ লক্ষ) পৌঁছেছিল।

ফেসবুকের নতুন নামকরণ করা হয়েছিল ২০০৫ সালে এ সময়েই বর্তমান নাম "ফেসবুক" দেওয়া হয়েছিল। 2005 সালের ডিসেম্বরে, ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৫৫ লক্ষ ছাড়িয়েছে। আর ২০০৫ অবধি এর ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন শুধু মাত্র সংস্থার কর্মী ছিলেন। তবে সেপ্টেম্বর ২০০৬ এ এটি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছিল। তারপরে 3 মাসর মধ্যে ব্যবহারকারী ১ কোটি ২০ লক্ষ ছাড়িয়ে যায়।



ফেসবুকের স্রষ্টা কে?

ফেসবুকের পিতা বা স্রষ্টা হলেন মার্ক জুকারবার্গ। তবে তিনি একমাত্র প্রতিষ্ঠাতা নন। তাঁর পাশাপাশি তাঁর কয়েকজন বন্ধু এবং রুমমেটও ফেসবুক তৈরির পেছনে কাজ করেছিলেন। 

আশার করি ফেশবুক বিষয়ে মোটামটি ধারনা পেয়ে গেছেন এবার চলুন যাওয়া যাক আজকের পোষ্টের মূল আলোচনায় 

কিভাবে ফেসবুক আইডি ফিরে পাব ২০২২

যে কারনে ফেশবুক একাউন্ট ডিজেবল হয়

আপনার ফেসবুক আইডি বন্ধ বা নিষ্ক্রিয় হওয়ার পিছনে মূলত তিনটি কারণ পাওয়া গেছে। সাইট রক্ষণাবেক্ষণ, ত্রুটি (স্প্যাম) এবং সুরক্ষা (আইডি সিকিউরিটি)। এসব কারনে ফেসবুক আইডি ডিজেবল হলে ফেশবুকের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে পুনরুদ্ধার করা যায় তবে পুনরুদ্ধার করার জন্য ফেসবুকের সাথে যোগাযোগ করার আগে আপনার আইডি ডিজেবল কারণটি আপনাকে বুঝতে হবে। তাহলে আইডি পুনরুদ্ধারের বিষয়টি ফেসবুক টিম কে ভালো ভাবে উপস্থাপন করতে পারবেন।

যদি সাইট রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি অস্থায়ীভাবে বন্ধ করা হয় তবে এটি দ্রুত সংশোধন করা যায়। এ ক্ষেত্রে ফেসবুক টিম কে জানালে তারা খুব তাড়াতাড়ি ঠিক করে দেয়।

ফেসবুক ক্যাপশন 

অনেক সময় রিপোর্টের কারনেও ফেসবুক আইডি ফেসবুক কতৃপক্ষ নিকট হতে আইডি ডিজেবল করে দেওয়া হয়। আপনি যদি অন্য কারো ফটো, ভিডিও, বা কোন লেখা কন্টেন্ট কপি করে আপনার ফেসবুক আইডি শেয়ার বা পোস্ট করেন আর সেই পোস্টের বিরুদ্ধে যদি অনেকেই রিপোর্ট করে বা আপনি অনেক বেশি অন্য সাইটের লিংক শেবার বা স্প্যাম করেন সে ক্ষেত্রেও আপনার ফেসবুক আইডি ডিজেবল হয়ে যেতে পারে। আবার যদি কেউ আপনার ফেসবুক আইডি জন্য নকল অ্যাকাউন্ট হিসাবে প্রমান করার জন্য রিপোর্ট করে এবং  ফেশবুক টিমের কাছে যদি সত্য বলে মনে হয় সে ক্ষেত্রেও অ্যাকাউন্টটি মুছে ফেলা বা সরিয়ে ফেলা হতে পারে। এক্ষেত্রে ভুল করে অ্যাকাউন্টটি বন্ধ হয়ে গেলে আপনি ফেসবুকের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আবেদনও করতে পারেন। 

আজকে আমাদের মূল আলোচনাই এই আবেদন প্রসঙ্গে যদি ফেশবুকের কাছে আপনি উপযুক্ত প্রামিান সহ আবেদন করেন এবং আপনার আইডিটি যদি সত্যিই আপনার ফেক আইডি না হয় তাহলে অবশ্যই আপনি সেই আইডি ফিরে পাবেন। তাহলে চলুন ওই আবেদন প্রসঙ্গে যাওয়া যাক।

ফেসবুক চালু করার নিয়ম

শুরুতে আপনার মোবাইলে যে কোন ব্রাউজার অপেন করুন আপনার ফেশবুক আইডি তে লগইন করার চেষ্টা করুন সেখানে যাই দেখাক আপনি সেটি স্ক্রিনসট দিয়ে রাখুন এবার এই লিংকে প্রবেশ করুন facebook com/help/contact/260749603972907 আপনি নিচের ছবির মত একটি ফরম দেখতে পাবেন।

এই কন্টাক্ট ফরমটি প্রথম ঘরে আপনার লগইন মোবাইল নম্বর আথবা আপনার ইমেইল (Login email address or mobile phone number) যেটা দিতে দিয়ে আপনি আইডি তৈরী করেছেনে সেটা দিন ২য় ঘরে আপনার আইডি নাম (Your full name) অর্থাৎ যে নামে আইডি চালাতে সেই নামটি দিন। ৩য় ঘরে অর্থাৎ Choose Files বাটতে ক্লিক করে আপনার  স্ক্রিনসট নেওয়া ফাইল বা ছবিটি সাথে চাইলে আপনি আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের স্কান কপি এবং সদ্য তোলা ছবি যা সেলফি হলে ভালো হয় আপলোড করুন।  এবং Send বাটনে ক্লিক করুন ।  এবার আপনাকে এই রকমের একটি বার্তা দেওয়া হবে We'll get in touch with you at the email address you provided after we've reviewed your ID. You will now be locked out of Facebook. তবে মনে রাখবেন আপনার দেওয় জাতীয় পরিচয় পত্রের ছবি ও আপনার ব্যক্তির ছবি এবং আপনার ফেশবুক আইডিতে দেওয়া জন্ম তারিখ ও আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের জন্ম তারিখ যেন একই হয় তা নাহলে ফিরত না পেতে পারেন।

এখন আপনার অপেক্ষার পালা ২ থেকে ৩ দিনের মধ্যেই ফেশবুক টিমের কাছ থেকে একটি মেইল পাবেন সেখানেই বলে দেওয়া হবে আপনি আইডি ফিরে পাবেন নাকি পাবেন না।

বেশির ভাগ সময়েই ফেসবুক বাড়তি কিছু তথ্য পর্যালোচনা আপলোড করতে বলে তখন আপনাকে একটি বার্তা দেওয়া হয় এ ধরনের ঘটনা ঘটলে পরিচয় শনাক্ত করতে বাড়তি তথ্য ফেসবুককে না দিলে তারা সেই আইডি আর ফিরিতে দেয় না সেজন্য আমি শুরুতেই আপনাকে আপনার জাতিয় পরিচয় পত্রের স্কান কপি দিবে বলেছি।

নাম, জন্মদিন ছবি যাতে সঠিকভাবে দেখা যায়।সে জন্য আপনাকে ডকুমেন্টটি স্ক্যান করতে কম্পিউটারের সাহাজ্য নিয়ে হবে। তারপরে আপনাকে ফেসবুকের যোগাযোগের ফর্মটিতে গিয়ে আইডি আপলোড করতে হবে। মনে রাখবেন ফেসবুক একাউন্টে ফেরতের প্রক্রিয়া শেষ করতে বা একটি অনুরোধের প্রতিক্রিয়া জানাতে ফেসবুক কয়েক সপ্তাহ পর্যন্ত সময় নিতে পারে। তবে যদি আপনি জাল আইডি অর্থৎ জাতীয় পরিচয় পত্র নকল বানিয়ে অ্যাকাউন্ট ফিরে পেতে ব্যবহার করে থাকেন তাহলে অ্যাকাউন্টটি ফেরত পাওয়ার সম্ভাবনা কম।

শেষ কথা - সত্যি বলতে কি ডিজেবল হওয়া আইডি ফিরে পাওয়ার ১০০ ভাগ গ্রান্টি কেউ দিতে পারবেনা তবে যদি আপনার আইডি সঠিক হয় ফেক আইডি না হয় তাহলে অবশ্যই ফিরে পাবেন। আমি নিজেই কয়েকটা আইডি ফিরয়ে এনেছি জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে।

 আরও পড়ুন

কিভাবে অনলাইনে জমির খতিয়ান/পর্চা পাবেন

নতুন ভোটার আইডি কার্ড করার নিয়ম

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাই ২০২১

কিভাবে হ্যাক হওয়া ফেসবুক আইডি ফিরে পাব

আপনার ফেসবুক আইডি হ্যাক হলে ফিরিয়ে আনতে আপনাকে শুরুতে ফেসবুকে আপনার হ্যাক হওয়া আইডি সম্পর্কে কিছু তথ্য দিতে হবে যেমন হ্যাক হওয়া আইডি'র ফোন নম্বর বা মেইল, প্রফাইল নাম, হ্যাক আইডির পুরনো পাসওয়ার্ড।

যেভাবে করবেন। প্রথমে আপনার ফোনে বা নেট সংযোগ আছে অন্য কোনও ডিভাইসে একটি ব্রাউজার দিকে ফেসবুকের facebook. com/ hac ked এই লিঙ্কটি প্রবেশ করান। এখানে আপনাকে নিচের ছবির মত একটি পৃষ্ঠা দেখতে পাবেন।এবার My Account Is Compromised বাটনে ক্লিক করুন।

facebook-hacked-id-form-1

এবার আপনাকে নিচের ছরির মত একটি পেজে নিয়ে যাওয়া হবে এখানে আপনাকে আপনার আইডি খুজতে বলা হবে (Find Your Account) এবার আপনার হ্যাক হওয়া আইডি যেই নম্বর বা মেইল দিয়ে ক্রিয়েট করেছিলেন সেটা দ্বারা অনুসন্ধান করুন।

facebook-hacked-id-form-2

আপনি যদি আইডিটি খুঁজে পান তবে নিচের মতো আসবে, এখন আপনার ফেসবুক আইডির মোবাইল নম্বর বা মেইল দিন এবং নিচে পাসওয়ার্ডটি দিয়ে Continue বাটনে ক্লিক করুন। যদি সব কিছু ঠিকঠাক থাকে তাহলে আপনি আপনার হ্যাক হওয়া ফেশবুক আইডি টি ফিরে পাবেন।

facebook-hacked-id-form-3

যদি হ্যাকার চালাক হয় তবে এই প্রক্রিয়াটি কার্যকর নাও হতে পারে, কারন হ্যাকার পর পর দুবার পাসওয়ার্ড পরিবর্তন আপনি তো আপনি পুরনো পাসওয়ার্ড দিতে পারবেন না। আর পুরোনো পাসওয়ার্ড দিতে না পারলে এই প্রক্রিয়াটি আপনার পক্ষে কাজ করবে না। আজকে এই পোস্ট থেকে যদি উপকৃত হন তবে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জানাবেন?

এখন আলোচনা করব কিছু ভিন্ন বিষয় নিয়ে যা জানা আপনার আমার সবার জন্য জরুরী

ফেসবুক আইডি হ্যাক করণীয়

যে কারনে ফেশবুক হ্যাক আইনী সহায়তা নিবেন

আপনি যদি হ্যাক হওয়া ফেসবুক আইডিটি কোন ভাবেই ফিরিয়ে আনতে না পারেন তাহলে আপনাকে আইনী সহায়তা নিতে হবে কেননা হ্যাক হওয়া ফেসবুক আইডিটিও আপনাকে বড় কোন বিপদে ফেলতে পারে। কারন আপনি জানেন না আপনার ফেশবুক একাউন্ট টি কে হ্যাক করেছে। এমনও হতে পারে  হ্যাকার আপনার আইডি দিয়ে বড় ধরনের কোন অপরাধমূলক কাজ করতে পারে। তাই কোন ঝামেলায় পড়তে না চাইলে আইনী জামেলায় পরার আগেই পুলিশ ও বিটিআরসিকে অবহিত করুন। যদি হ্যাকার আপনার ফেসবুক আইডি ব্যবহার করে, কোনও অপরাধমূলক কাজ করেও তারপরও যেন আপনি ফেশে না যান সেই জন্য আপনার আইনী সহায়তা নেওয়া দরকার।

আপনি প্রথমে উপরে উল্লেক্ষিত নিয়ম বা ধাপ গুলো করে আইডিটি ফিরে পাওয়ার চেষ্টা করবেন। যদি আইডিটি ফিরে না পান তবে স্থায়ীভাবে ফেসবুক আইডি মুছতে চেষ্টা করুন। আপনি যদি সেটাও করতে পারেন, তাহলে প্রথমে আপনি আপনার এলাকার থানায় গিয়ে একটি জিডি করুন।

'আপনি জিডি করলে আপনাকে জিডির একটি অনুলিপি দেওয়া হবে।'

তারপরে, সাইবার সিকিউরিটি হটলাইনে 01766678888 এ কল করুন (অফিস চলাকালিন সময়) আপনার কাছে তারা  জানতে চাইবে আপনি আপনার ফেসবুক  আইডিটি ফিরে পেতে চান কি না?  নাকি চিরতরে হ্যাক হওয়া ফেসবুক  আইডিটি  মুছতে চান। সাইবার সিকিউরিটি হটলাইন নম্বরে সাথে যোগাযোগ করার তারা আপনাকে এই ইমেল ঠিকানাটি [email protected] প্রেরণ করবে। আপনার এই মেইল   ঠিকানায় নিচে উল্লেক্ষিত  অ্যাটাচমেন্ট গুলো পাঠাতে বলবে।

1) স্ক্যান করা জিডির অনুলিপি।
২) ভোটার আইডি কার্ডের রঙিন স্ক্যান কপি (অবশ্যই রঙিন হওয়া উচিত))
3) হ্যাক করা ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লিঙ্ক।
৪) একটি ইমেল আইডি ।

আপনার পাঠানো মেইল তারা পেয়েছেন তা নিশ্চিত করতে আপনি আবার হটলাইনে কল করতে পারেন। আপনার সমস্ত সংযুক্তি যদি সঠিকভাবে মেইল করা হয়। তাহলে তারা আপনার অ্যাকাউন্টটি পুনরুদ্ধার করবে এবং আপনাকে ০৩ থেকে ০৪ দিনের মধ্যে ফোনে জানিয়ে দেবে।

আপনার জন্য নির্বাচিত পোষ্ট সমুহ

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন