চাল-ধোয়া পানি বা ভাতের ফ্যান‚ নিয়মিত ব্যবহার করলে পাবেন চুল ও ত্বকের সমস্যার ম্যাজিক সলিউশন

আপনার সুন্দর চুল এবং ত্বক পেতে যা দরকার তা হ'ল হ্যাঁ, এক বাটি চাল পানিতে ভিজিয়ে রাখুন আপনার ত্বক এবং চুলের উন্নতি করতে এটি ব্যবহার করুন water জলটি না ফেলে ভাত ধোয়া জল কিছুটা মেঘলা রয়েছে যার কারণে, স্টার্চ ভাতের মধ্যে রয়েছে এই পানিতে প্রচুর ভিটামিন এবং পুষ্টি রয়েছে যা আপনার ত্বক এবং চুলের জন্য খুব উপকারী


আসুন এক ঝলক দেখে নিন চুল ধোয়া জল এবং কীভাবে এটি ব্যবহার করবেন তার সুবিধা কি কি ? 
১) চুল পড়া কমায় : চুল পড়ার ক্ষতি কমাতে চাল-ধোয়ার পানির জুড়ি নেই এতে উপস্থিত অ্যামিনো অ্যাসিড চুল পড়া কমাতেও নতুন চুল বাড়তে সাহায্য করে এটিতে ভিটামিন বি 6 সিআরই রয়েছে যা নতুন চুল বাড়তে সাহায্য করে সপ্তাহে কমপক্ষে দু'বার এই জল দিয়ে আপনার মাথা ধুয়ে ফেলুন

২) স্প্লিট এন্ডস কমায় : যখন চুল রুক্ষ হয়ে যায়, চুলের বিরতি শেষ হয় কারণ চুলের প্রোটিন হ্রাস হওয়ায় আমি ইতিমধ্যে বলেছি যে ভাত ধোয়ার পানিতে অ্যামিনো অ্যাসিড থাকে যা এই সমস্যাটি দূর করে rice আপনার চুলকে ভাত দিয়ে ভিজিয়ে রাখুন is 15 মিনিটের জন্য জল ধুয়ে ফেলুন তারপর ঠান্ডা জল দিয়ে চুল ধুয়ে নিন আপনি যদি নিয়মিত এটি করেন, আপনি শীঘ্রই ফলাফলগুলি দেখতে পাবেন


৩) চুল নরম ও চকচকে করে : রুক্ষতার কারণে চুল মলিন দেখায় | চুলে শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার না লাগিয়ে রাইশ ওয়াটার লাগান | অবশ্য চুল খুব বেশি ড্রাই হলে কন্ডিশনরও লাগাতে হবে | এর ফলে চুলের কোয়ালিটি ভালো হবে‚ চুল নরম ও চকচকে হবে এবং চুল মজবুত হবে |


৪) হেয়ার ড্যামেজ কন্ট্রোল করে : রাইশ ওয়াটার সারফেস ফ্রিকশন কমায় ফলে চুলের ইলেকট্রিসিটি বাড়ে | এছাড়াও এই জলে এক ধরণের কার্বোহাইড্রেট থাকে যার নাম ইনোসিটল যা চুলের ড্যামেজ রোধ করে | আর রাইশ ওয়াটারে উপস্থিত অ্যামাইনো অ্যাসিড চুলের গোড়া শক্ত ও মজবুত করে |



৫) খুসকি কমায় : চুল মজবুত করার সঙ্গে সঙ্গে চুলের খুসকিও দূর হয় | তবে এর জন্য একদিন অন্তর রাইশ ওয়াটার দিয়ে চুল ধুতে হবে |
চাল ধুয়ে সেই জল ব্যবহার করতেই পারেন | তবে সব থেকে ভালো হয় যদি ভাতের মাড় বা চাল ফুটিয়ে সেই জল ছেঁকে ঠান্ডা করে চুলে লাগানো যায় | সুন্দর গন্ধ চাইলে এতে কয়েক ফোঁটা এসেনসিয়াল অয়েল দিতে পারেন | এছাড়াও চাল ধুয়ে সেই জল একটা কাচেঁর বোতলে ভরে কয়েকদিন রাখলে তা ফার্মেন্ট করে যাবে | সেই জলও চুলের জন্য খুব উপকারী |

0 Response to "চাল-ধোয়া পানি বা ভাতের ফ্যান‚ নিয়মিত ব্যবহার করলে পাবেন চুল ও ত্বকের সমস্যার ম্যাজিক সলিউশন"

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

Iklan Atas Artikel

Iklan Tengah Artikel 1

Iklan Tengah Artikel 2

Iklan Bawah Artikel