হঠাৎ করে প্রেসার কমে গেলে কী করণীয় ?

এমনই জীবনযাত্রা 'যে হঠাৎ প্রেসার কমে' যেতেই পারে৷ অতিরিক্ত পরিশ্রম, দুশ্চিন্তা, 'ভয় ও স্নায়ুর দুর্বলতা' থেকে লো 'ব্লাড প্রেসার' হতে পারে। সেক্ষেত্রে 'প্রেসার লো' হলে মাথা ঘোরা, ক্লান্তি, অজ্ঞান হয়ে যাওয়া, বমি বমি ভাব, ধড়ফড়ানি, ক্লান্তি, অস্পষ্ট দৃষ্টি এবং সাধারণত শ্বাস নিতে সমস্যা হয়
ফলস্বরূপ, 'রক্তচাপ কম' থাকলে, বাড়িতে কিছু প্রাথমিক পদক্ষেপ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ
১) শক্তিশালী কফি, হট চকোলেট এবং যে কোনও 'ক্যাফিন সমৃদ্ধ পানীয় দ্রুত রক্তচাপ বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে'। ফলস্বরূপ, আপনার যদি 'রক্তচাপ হাঠাৎ কমে থাকে তবে আপনি এক কাপ কফি পান করতে পারেন'। তবে আপনার যদি সারাক্ষণ কম রক্তচাপ থাকে তবে কোলা না খাওয়াই ভালো।
২) 'নুনে আছে সোডিয়াম যা রক্তচাপ বাড়ায়। তবে জলে বেশি নুন না দেওয়াই ভালো। সবচেয়ে ভালো হয়, এক গ্লাস জলে দুই চা-চামচ চিনি ও এক-দুই চা-চামচ নুন মিশিয়ে খেলে'। তবে 'যাদের ডায়াবেটিস আছে, তাদের চিনি বর্জন করতে হবে'।
৩) 'হাইপার টেনশনের ওষুধ হিসেবে প্রাচীনকাল থেকে ব্যবহৃত হয়ে আসছে কিশমিশ'।এ ক-দুই কাপ কিশমিশ সারা রাত জলে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে খালি পেটে কিশমিশ ভেজানো জল খেয়ে নিন। তাছাড়া ৫টি কাঠবাদাম ও ১৫ থেকে ২০টি চিনাবাদাম খেতে পারেন।
৪) ভিটামিন ‘সি’, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম ও প্যান্টোথেনিক উপাদান যা দ্রুত 'ব্লাড প্রেসার' বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে মানসিক অবসাদও দূর করে। পুদিনাপাতা বেটে এতে মধু মিশিয়ে পান করলে কাজে দেবে৷
৫) 'প্রাচীনকাল থেকেই যষ্টিমধিু  বিভিন্ন রোগের প্রতিষেধক' হিসাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এক কাপ জল এক চা চামচ যষ্টিমধিু  সহ পান করুন। 'দুধ ও মধু খেলেও উপকার' পাবেন।
৬) 'উচ্চ ও নিম্ন রক্ত'চাপ উভয়ের জন্যই বিটের রস সমানভাবে উপকারী। এটি রক্তচাপকে স্বাভাবিক রাখতে ভূমিকা রাখে। এইভাবে আপনি এক সপ্তাহ খেলে উপকৃত হবেন।

0 Response to "হঠাৎ করে প্রেসার কমে গেলে কী করণীয় ?"

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

Iklan Atas Artikel

Iklan Tengah Artikel 1

Iklan Tengah Artikel 2

Iklan Bawah Artikel